দুর্গাপুরে ফসলের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণ বিষয়ক কর্মশালা

ডিএনবি নিউজ ডেস্ক:

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এর আয়োজনে ফসলের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের আওতায় ধান, গ্রীষ্মকালীন সব্জি ও মসলা আবাদ বৃদ্ধি করনীয় এক অবহিতকরণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

এ উপলক্ষে দিনব্যাপি কর্মশালায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর নেত্রকোনা এর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ এফ এম মোবারক আলী‘র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি আলোচনা করেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মো. আব্দুল মাজেদ। এ বিষয়ে আলোচনা করেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামার বাড়ী ঢাকা এর প্রকল্প পরিচালক কৃষিবিদ মোহাম্মদ জিয়াউর রহমান, বিশেষ অতিথি হিসেবে আলোচনা করেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ রাজীব-উল-আহসান, উপজেলা কৃষি অফিসার মো. মাহবুবুর রহমান, সংসদ সদস্য প্রতিনিধি বিপ্লব মজুমদার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পারভীন আক্তার প্রমুখ।




দুর্গাপুরে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন

ডিএনবি নিউজ ডেস্ক:

জেলার দুর্গাপুরে জোড়পূর্বক জমির ধান কাটার অভিযোগের বিষয়কে কেন্দ্র করে গত বুধবার গাঁওকান্দিয়া ইউনিয়নের মুন্সিপাড়া গ্রামের মোঃ জলিল তালুকদার এর স্ত্রী মোছাঃ আনোয়ারা বেগম ও তার সন্তান আশরাফ হোসেন শাহীন যে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এরই প্রতিবাদে ওই ইউনিয়নের মো. সাখাওয়াত হোসেন হারুন প্রকাশিত সংবাদ সম্মেলনের বিরুদ্ধে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেন। বুধবার দুপুরে দুর্গাপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

মো. সাখাওয়াত হোসেন হারুন তার লিখিত বক্তব্যে জানান, আমারা মুন্সিপাড়া গ্রামের মোঃ জলিল তালুকদার এর জমিতে জোরপুর্বক ধান কেটে নিয়েছি মর্মে বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টাল, জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকায় যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে তা কোনটাই সত্য নয়। এলাকার জনপ্রতিনিধি ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে গত ১৩.০১.১৯৯৫ইং সনে এক গ্রাম্য সালিশের মাধ্যমে ৭.০৮ একর জমির মুল্যবাবদ এক লক্ষ কুড়ি হাজার টাকা মোঃ জলিল তালুকদার নিয়েছে বলে প্রমানিত হয়। এর পর থেকেই বৈধভাবে ওই জমিতে আমরা চাষাবাদ করে আসছি। মোঃ জলিল তালুকদার অসুস্থ্য হয়ে মৃত্যুবরণ করার পর তার ছেলেরা ও তার স্ত্রী আমাদের কাছে জমি বিক্রির কথা সম্পূর্ণ অস্বীকার করে ওই জমি দাবী করেন। শাহীন গংরা উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে আমাদের ভুমি দস্যু আখ্যায়িত করায় সমাজে আমাদের মান-সম্মানের হানি ঘটেছে। আমি অত্র সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তার মিথ্যা সংবাদ সম্মেলন ও হেন কর্মকান্ডের তীব্র প্রতিবাদ জানাই। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা মো. সুরুজ আলী, আব্দুল্লাহ আল মামুন শাহান, ইউপি সদস্য মো. শাহজাহান মিয়া, ইউপি সদস্য মো. রফিক, এলাবাসীর পক্ষে মো. রাসেল মিয়া, ফয়জুর রহমান বাবুল, উজ্জল মিয়া, শাহবাজ শরিফ উপস্থিত ছিলেন।




ধানের ভিতরে চাউল নেই, কৃষকের সর্বনাশ

ডিএনবি নিউজ ডেস্ক:

দুর্গাপুরে বাঙালি, গারো আদিবাসী অধ্যুষিত এই এলাকার বেশিরভাগ মানুষই কৃষি কাজের উপর নির্ভরশীল। প্রায় আড়াই লাখ জনগোষ্ঠীর এই উপজেলায় খাদ্য চাহিদা বেশিরভাগই উৎপাদিত হয় স্থানীয় ভাবেই। এ ছাড়া উৎপাদিত ফসল বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে এখানকার কৃষকরা।
বছরে রুপা আমন ও বোরো মৌসুমের ধানের চাষাবাদ করেই সারাবছর চলেন কৃষকেরা। তবে এ বছর আকস্মিক প্রাকৃতিক দুর্যোগ গরম হাওয়া ও ব্লাস্ট ভাইরাসের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেক কৃষকের জমির ধান। কোথাও কোথাও অর্ধেকেরও বেশি ধান নষ্ট হয়েছে। উপজেলা চন্ডিগড়, বিরিশিরি, কাকৈরগড়া, বাকলজোড়া, গাঁওকান্দিয়া, কুল্লাগড়া, সদর ইউনিয়ন সহ উপজেলার প্রায় প্রতিটি গ্রামে একই অবস্থা।
ক্ষতিগ্রস্ত জমি গুলোতে অর্ধেকেরও বেশি ধান নষ্ট হয় ধান পেকে থাকলেও শ্রমিকের টাকায় চিন্তাই অনেক কৃষকই পারছেন না ধান। অনেক কৃষকই আবার নিজের জমির ধান নিজে কোনরকমে কাটছে। তবে বাজারে ন্যায্যমূল্য পেলে ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারবেন বলে মনে করছেন তারা। এবছর দুর্গাপুর উপজেলায় ১৭ হাজার ৬ শত হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। এর মাঝে প্রায় সাড়ে ৭ হাজার হেক্টর জমিতে হাইব্রিড ও বাকি ১০ হাজার হেক্টর জমিতে উচ্চফলনশীল (উফশী) জাতের ধানের আবাদ করেছেন কৃষকরা। কৃষি কর্মকর্তাদের তথ্যমতে, প্রাকৃতিক দুর্যোগে তাই ৯৮০ হেক্টর জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এর মাঝে ৪২০ হেক্টর জমির ধান পুরোপুরি নষ্ট হয়েছে। টাকার হিসাবে যা দাঁড়ায় ৬ কোটি টাকা বেশি। তাছাড়া ধানের হিসেবে ২ হাজার ৬৪৬ মেট্রিক টন ধান আবাদ হবে। কৃষকরা বলছে এই ক্ষতির পরিমাণ আরো প্রায় ২ হাজার হেক্টর চেয়েও বেশি। ধানের বিভিন্ন জাতের মাঝে এবারে দুর্যোগের ব্রি ধান ২৮ ও ব্রি ধান ২৬ এর সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব জাতের জমিগুলোতে গরম হওয়ার প্রভাব ও ব্লাস্টের প্রভাব পড়েছে সবচেয়ে বেশি। ৫ কাঠা জমি থেকে আগে যেখানে ২০ থেকে ২৫ মণ ধান অবাক হতো এখন থেকে কৃষকরা পাচ্ছেন ১০ থেকে ৮ মণ ধান। সরকারিভাবে পুরো উপজেলায় ধান কাটার জন্য দুটি হারভেস্টার মেশিন দেয়া হলো তাও পর্যাপ্ত নয় বলে বলছেন কৃষকরা। সমতলের কৃষি ভূমির ধান কাটার জন্য হারভেস্টার মেশিন বেশ কার্যকরী তাই সরকারিভাবে হাইকমিশনের সংখ্যায় উপজেলায় আরো বাড়ানোর দাবি কৃষকদের।
এদিকে গত বছর করোনাকালীন সময়ে বিভিন্ন সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অসহায় ও দরিদ্র কৃষকদের ধানক্ষেতে বাড়ি পৌঁছে দাও এ বছর চিত্রটা পুরোপুরি ভিন্ন। হাতে গোনা দুই একটি সংগঠন ছাড়া কাউকেই স্বেচ্ছাশ্রমে ধান কাটতে দেখা যাচ্ছে না।
চন্ডিগড় গ্রামের কৃষক মেরাজ জানান, ৫ কাঠা জমিতে বি ২৮ জাতের ধানের আবাদ করছি। যে জমিতে আগে ২০ থেকে ২৫ মণ ধান পাইতাম এখন ঐ জমি থেকে মাত্র ৭/৮ মণ ধান পাইছি। এখন আমরা বাজারে বিক্রি করবো কি আর নিজেদের খাবার জন্য রাখবো কি। তাছাড়া বাজারে যদি ধানের ন্যায্যদাম পাই তাহলে হয়তো ক্ষতি কিছুটা পূরণ হবে।
কুল্লাগড়া গ্রামের কৃষক আবদুল মোতালেব জানান, আড়াই লাখ টাকা ঋণ নিয়ে ২০ কাঠা জমির ধান করছি। কিন্তু গরম হাওয়া আর ব্লাস্ট এর কারণে সব ধান নষ্ট হয়ে গেছে। জমিতে ধান থাকলেও কাটল কোন লাভ নাই কারণ ধানের মাঝে কোন চাল নাই সব নষ্ট হয়ে গেছে। কিভাবে এই ঋণ পরিশোধ করুম এই চিন্তায় ঘুম আসেনা।
এদিকে নির্বাহী কর্মকর্তা বলেছেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা প্রস্তুত করে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের কাছে প্রেরণ করেছি। এবং দ্বিতীয় পর্যায়ের একটি তালিকা তৈরির কাজ চলছে। সরকারি সহায়তা পেলেই কৃষকদের কাছে তা পৌঁছে দেওয়া হবে।




দুর্গাপুরে সীমান্তবর্তী আদিবাসীরা বর্ডার হাট চান

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে বসবাস করা আদিবাসী নারীরা মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রি করেই চলছে তাদের জীবন জীবিকা। এ কষ্ট থেকে পরিত্রাণের জন্য সীমান্তবর্তী হাট চান পাহাড়ি আদিবাসীরা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, এপারে বাংলাদেশের উত্তর ভবানীপুর গ্রাম, ওপারে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের বাঘমারা উপ-শহর। দুই দেশের সীমান্তসংলগ্ন গ্রাম দুইটির আশপাশে দীর্ঘদিন কোনো বর্ডার হাট না থাকায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে যেতে হতো দূরের কোনো গঞ্জে বা শহরে।

এ দুর্ভোগের কারণে এসব এলাকার সীমান্তে চোরাচালানের ঘটনাও বেড়ে গিয়েছিল অস্বাভাবিক হারে। কিন্তু সে দুর্ভোগ বা চোরাচালানের দৃশ্যপট এখন সবই পাল্টে গেছে।

দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি ও বিএসএফের চোখ ফাঁকি দিয়ে বাংলাদেশ থেকে শাকসবজি, মাছ, মুরগী, বুট, কাঁচা সুপারি, সিগারেট আর ওপার থেকে বিস্কুট, চিনি, ডাল, লবন, কসমেটিক ও জিরা আনা নেয়ার কাজ করে কোন রকম দিন পার করছে স্থানীয় আদিবাসী নারীরা।

আদিবাসী নারী প্রেমলা হাজং বলেন, ‘মলা তো গুরিব মানুষ, উন্য বিবুসা কুরিবো ট্যাংকা কুবায় পায়’ (আমরা গরীব মানুষ, জীবন জীবিকার জন্য অন্য ব্যবসা করতে টাকা কোথায় পাবো) মাঝে মধ্যে খুব কষ্টে পড়তে হয় আমাদের, ওপারের দোকানিরা সুযোগ বুঝে আমাদের মালগুলো বাকিতে রাখতে চায়।

আমরা একদিন কাজ না করলে আমাদের না খেয়ে থাকতে হয়। বেচাকেনা শেষে কোন দিন ৫০০, কোন দিন ৪০০ টাকা লাভ হয়। এদিয়েই কোন রকম চলে আমাদের সংসার।

মাটি কাটার কাজে নারী শ্রমিকদের চেয়ে পুরুষদের চাহিদা বেশি থাকায় আমরা এ ব্যবসা করছি। মালামাল পারাপারের জন্য কাউকে কোন টাকা দিতে হয় কিনা জিজ্ঞাসা করলে জানান, আগে টুকরি প্রতি বাংলাদেশ সীমান্তে ১০০ টাকা দিতে হতো, এখন ওদের চোক ফাঁকি দিয়েই আমাদের জীবিকা নির্বাহ করছি।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিজিবি বলেন, আমরা অত্যন্ত সতর্কভাবে সীমান্তে টহল দিচ্ছি, আমাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে স্থানীয় আদিবাসীরা জীবন জীবিকার তাগিদে যে কাজটি করে খাচ্ছে, তা দোষের কিছু নয়। তবে কোন প্রকার মাদক পেলে কাউকে ছাড় দেই না। মাদকের বিরুদ্ধে আমরা সর্বোচ্চ সতর্কতায় রয়েছি।

এনিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীব-উল-আহসান প্রতিনিধিকে বলেন, আমি এই উপজেলায় নতুন এসেছি, বর্ডার হাট ও এই এলাকা দিয়ে এলসি খোলাসহ নানা বিষয়ে ইতোমধ্যে দু‘দেশের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বৈঠক হয়েছে বলে জেনেছি।

আশাকরি অল্প কিছু দিনের মধ্যে এসব প্রস্তাবনা বাস্তবায়িত হবে। এতে সীমান্তবর্তী খেটে খাওয়া আদিবাসী শ্রমিদের দুর্দশা কিছুটা হলেও লাঘব হবে।




রমজানে মাছ-মাংসের দাম বাড়ানো যাবে না

আসন্ন পবিত্র রমজানকে সামনে রেখে মাছ, মাংস, দুধ, ডিমের মূল্য কোনোভাবেই অস্বাভাবিক করা যাবে না বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। রোববার (২১ মার্চ) বিকেলে সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বাজার স্থিতিশীল রাখা এবং সরবরাহ চেইন নিশ্চিতকরণ সংক্রান্ত এক সভায় এ কথা বলেন মন্ত্রী । তিনি বলেন, ‘মূল্য বৃদ্ধি করা তো যাবেই না বরং যতটা সম্ভব সহনীয় পর্যায়ে কমিয়ে আনতে হবে। বাজারের স্থিতিশীলতা রক্ষা করতে হবে। একইসঙ্গে সরবরাহ চেইনকে অবশ্যই স্বাভাবিক রাখতে হবে। এক্ষেত্রে মৎস্য অধিদফতর

ও প্রাণিসম্পদ অধিদফতর সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় সকল সহায়তা দেবে। অধিদফতরের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তারা সার্বক্ষণিক সহযোগিতা দেবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘রমজান মাসে মাছ, মাংস, দুধ ও ডিমের মূল্য স্থিতিশীল রাখতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ভ্রাম্যমাণ বিক্রয়ের জন্য জেলা পর্যায়ে ১০টি করে ভ্যান দেয়া হবে। মৎস্য অধিদফতর ও প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের সহায়তায় এসব ভ্যানের মাধ্যমে খামারিরা উৎপাদিত পণ্য ক্রয়-বিক্রয় করতে পারবে। যাতে জনগণের কাছে এই বার্তাটি পৌঁছে যায়, বাজারে মূল্য বেড়ে গেলেও এর বিকল্প ব্যবস্থা আছে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বড় বড় ধর্মীয় উৎসবে পণ্যের দাম কমে যায় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘রমজান মাসে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখার পথ চাইলেই খোঁজা সম্ভব। প্রয়োজনে এসময় ব্যবসায়ে লাভের পরিমাণ কম করতে হবে। নির্দিষ্ট সময় দ্রব্যমূল্যে ছাড় দিয়ে নিজ প্রতিষ্ঠানকে ক্রেতাদের কাছে আরও আকর্ষণীয় করাও সম্ভব।’

তিনি আরও বলেন, ‘করোনাসহ বুলবুল, আম্ফানের মত প্রাকৃতিক দুর্যোগ সরকারকে মোকাবিলা করতে হচ্ছে। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে ত্রাণ পৌঁছে দিতে হচ্ছে। বিভিন্ন খাতে প্রণোদনা দিতে হচ্ছে। করোনার টিকার ব্যবস্থা করতে

হচ্ছে। এজন্য সরকার কোথাও অতিরিক্ত কর ধার্য করেনি। এক্ষেত্রে সরকারকে সহযোগিতা করার জন্য ব্যবসায়ীদের এগিয়ে আসতে হবে যাতে, কোনোভাবেই দেশের মানুষ কষ্ট না পায়।’এ সময় মাছ, মাংস, দুধ, ডিম বিক্রয়ের ক্ষেত্রে কম মূল্য নির্ধারণের জন্য সুপারশপের প্রতিনিধিদের অনুরোধ জানান মন্ত্রী।

সভায় অংশগ্রহণ করেন-মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদ, প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. আবদুল জব্বার শিকদার, মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক কাজী শামস আফরোজ, বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান কাজী হাসান আহমেদ, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শাহ্ মো. ইমদাদুল হক ও শ্যামল চন্দ্র কর্মকার, মন্ত্রণালয়, মৎস্য অধিদফতর ও প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ, বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ সেন্ট্রাল কাউন্সিল, বাংলাদেশের ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশন, ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, সুপারশপ ‘স্বপ্ন’, বেঙ্গল মিট, যাত্রাবাড়ী মাছ ব্যবসায়ী সমিতিসহ মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাত সংশ্লিষ্ট অন্যান্য অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিরা।




কলমাকান্দার দ্বীপক বিসিএস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নির্বাচিত

কলমাকান্দা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি: নেত্রকোনার কলমাকান্দার কৃতি সন্তান কৃষিবিদ দ্বীপক কুমার পাল বিসিএস (কৃষি) এ্যাসোসিয়েশন ২৮তম ব্যাচের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। শনিবার রাতে ঢাকার ধানমন্ডির ফরেষ্ট লাউঞ্জ রেস্টুরেন্টে বার্ষিক সভায় সদস্যদের ভোটে সভাপতি হিসেবে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (কৃষি) এ্যাসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটির ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি কলমাকান্দা সদরের চানপুর রোড এলাকার ডা. দীনেশ কুমার পালের ছেলে। কৃষিবিদ দ্বীপক বর্তমানে ঢাকার খামারবাড়ি উপপ্রকল্প পরিচালক হিসেবে লেবু জাতীয় ফসলের স¤প্রসারণ, ব্যাবস্থাপনা ও উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্পের দায়িত্বে আছেন।




দুর্গাপুরে পানি সংকট অতি চরমে

নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলা পৌরসভা ও ৭টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। গ্রীষ্মের শুরুতে দেখা দিয়েছে পানির তীব্র সংকট। চতুর্দিকে সুপেয় পানির হাহাকার থাকায় নানা রোগব্যাধি ছড়িয়ে পড়ছে এলাকায়। সমস্যা সমাধানের জন্য জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট মহলের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী। গোপালপুর, ভবানীপুর, গুজিরকোনা ঐসব এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, অধিকাংশ টিউবয়েলে রয়েছে আর্সেনিক। নদী-খাল, পুকুরের পানি শুকিয়ে যাওয়ায় বোরো চাষে ঘটছে বিপর্যয়।

এ নিয়ে শনিবার বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রাম গুলো ঘুরে জানা গেছে, প্রতি বছর এই মৌসুমে পানির স্তর নীচে নেমে যাওয়ায় বিশুদ্ধ পানি ও ক্ষেতে চাষের পানির অভাব চরম আকার ধারণ করেছে। শত শত লোকজন নানা রোগ-ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়। সুপেয় পানির এ সংকট যেন এলাকাবাসীর নিত্য দিনের সমস্যা। বোরো আবাদে পানি না পেয়ে সাধারণ কৃষকগন দিশেহারা হয়ে উঠেছে। এলাকায় ধনাঢ্য ব্যক্তিদের বাড়ীতে সাব-মার্সেবল থাকায়, সুপেয় পানির ব্যবস্থা থাকলেও সমস্যা থেকে যায় এলাকার নি¤œ আয়ের মানুষ গুলোর। গত কয়েক বছর ধরে দুর্গাপুর সদর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী এলাকার আদিবাসী গ্রাম গুলোতে এ সমস্যা চলতে থাকলেও সরকারিভাবে এটি সমাধানের জন্য কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। এলাকার বেশিরভাগ নদী-খাল ও পুকুর শুকিয়ে যাওয়ায় গোসল ও খাবার পানি মিলছে না কোথাও। ফলে লোকজনকে আর্সেনিকযুক্ত টিউবয়েলের পানি দিয়েই সাংসারিক সকল কাজ করতে হচ্ছে। এ ছাড়া চন্ডিগড় উচ্চ বিদ্যালয়, মাকরাইল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বারমারি উচ্চ বিদ্যালয়, বিরিশিরি ইউনিয়ন উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাব-মার্সেবল টিউবওয়েল না থাকায় শিক্ষার্থীদের বিপাকে পড়ে আর্সেসিকযুক্ত পানিই পান করতে হচ্ছে। এ ছাড়া এখানকার বাসাবাড়ি ও হোটেল-রেষ্টুরেন্টে সুপেয় পানির অভাবে বিভিন্ন পুকুরের পানি ব্যবহার করতেও শুনাগেছে। বিভিন্ন লোক ভ্যানযোগে দূর থেকে সাব-মার্সেবল টিউবওয়েল এর পানি তুলে বিভিন্ন হোটেল-রেঁস্তোরায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। পানির এ প্রকট সমস্যায় যেন দিশেহারা হয়ে উঠেছে লোকজন।

বানিয়াপাড়া বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পল্টন হাজং জানান, তার বিদ্যালয়ে প্রায় ৪ শতাধিক ছাত্রী রয়েছে। তাদের জন্য সুপেয় কোন পানির ব্যবস্থা নেই। বাধ্য হয়ে দুষিত পানি পান করতে হয় আমাদের। এর ফলে নানা ধরণের পানিবাহিত রোগ-ব্যাধিতে ভুগতে হয় অনেককেরই।

চন্ডিগড় ইউপি চেয়ারম্যান আলতাবুর রহমান কাজল প্রতিবেদক কে জানান, বিশুদ্ধ পানির সংকট নিরসনের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করা হয়েছে। প্রকল্পটি পাশ হলে অনেক বাড়ীতে সাব-মার্সেবল টিউবওয়েল স্থাপন করা হবে, এতে সুপেয় পানির সমস্যার কিছুটা হলেও সমাধান হবে।

বিশুদ্ধ পানি নিয়ে উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম জানান, এ সমস্যা সমাধানে ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি পাইলট প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। নতুন বরাদ্দ পেলেই পরিকল্পনা অনুযায়ী বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রাম গুলোতে সাব-মার্সেবল টিউবওয়েল স্থাপন করে পানির সমস্যা অকোংশে দুরকরা সম্ভব।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীব-উল-আহসান প্রতিবেদককে কে জানান, এলাকায় বিশুদ্ধ পানির অভাবে পানিবাহিত বিভিন্ন রোগ ছড়ানোর আগেই জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলীর দপ্তরের মাধ্যমে প্রকল্প অনুযায়ী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে সাব-মার্সেবল টিউবওয়েল স্থাপন করার জন্য অচিরেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা হাতে নেয়া হবে।




ঢাকায় হাসিনা-মোদির বৈঠক ২৭ মার্চ

আগামী ২৭ মার্চ ঢাকায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একান্ত বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠকে দুই দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট সব ইস্যুতে আলোচনা হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন। সোমবার (১৫ মার্চ) সকালে রাজধানীতে ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

মোদির সফরে ভারতের সঙ্গে তিনটি সমঝোতা স্মারক সই হওয়ার কথা রয়েছে। তিস্তা চুক্তি নিয়ে বাংলাদেশ এখনও আশাবাদী বলেও জানান মন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, ভারতের সাথে আমাদের প্রত্যেকদিন আলোচনা চলছে। পানি নিয়ে ইস্যু এবং আমাদের গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুটা কমার্স মানে বাণিজ্য। আমাদের সচিব পর্যায়ে আলোচনা হয়েছে। আমাদের বড় ইস্যু ইচ্ছে বর্ডার কিলিং, সেটা আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সচিবদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। ক্রিটিকাল সব বিষয় আমরা আলোচনা করেছি।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে যেগুলো আলোচনা হবে সেগুলো মোটামুটি ঠিক হয়েছে। ওইগুলো যাতে বলবৎ থাকে, প্রয়োগে যাতে অসুবিধা না হয় সেজন্য হয়ত প্রধানমন্ত্রী তুলে ধরতে পারেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে।




বেশি উপকার পেতে কিশমিশ খান

আঙুর শুকিয়ে তৈরি হয় কিশমিশ। এতে থাকে প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান, খনিজ, আঁশ, ভিটামিন ও শর্করা যা শরীর সুস্থ রাখতে, হজম শক্তি ও লৌহের মাত্রা বাড়াতে এবং হাড় সুস্থ রাখতে সহায়তা করে। খালি বা বিভিন্ন খাবারের উপাদান হিসেবে মিশিয়ে খাওয়া হয় কিশমিশ। তবে সারা-রাত ভিজিয়ে রেখে কিশমিশ খাওয়ার উপকারিতা বেশি।

পুষ্টিবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে ভেজানো কিশমিশ খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে জানানো হল।

ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে:

কিশমিশ প্রাকৃতিক শর্করা সমৃদ্ধ এবং শরীরে বাড়তি ক্যালরি যোগ করা ছাড়া ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণে রাখে। এভাবে এটা দীর্ঘক্ষণ পেট ভরা রাখে ও ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে।

রক্ত স্বল্পতার সমাধান:

কিশমিশ নানান রকম শক্তিশালী পুষ্টি উপাদানে ভরপুর। এটা প্রচুর পরিমাণে লৌহ ও ভিটামিন বি-কম্পলেক্স সমৃদ্ধ যা রক্তস্বল্পতা প্রতিকারে সাহায্য করে। এতে থাকা কপার রক্তের লোহিত কণার পরিমাণ বাড়ায়।